মোদির জন্মদিনে ৭০০ ফুটের ৭ হাজার কেজির কেক, কাটবেন যে ৭০০ ব্যক্তি !!

0
48

‘লাকি সেভেন’ হচ্ছে সৌভাগ্যের প্রতীক। সব দেশে, সবখানে। এর নানান কারণ হতে পারে। কেন সারা বিশ্বে মানুষ সাতকে সৌভাগ্যের প্রতীক মনে করে, মনে করে পবিত্র একটি সংখ্যা? সাতের সঙ্গে জগতের অনেক কিছুর আছে সম্পর্ক—যেমন সাত সমুদ্র, সাত আসমান, সাতটি বৃহৎ পাপ, জাপানিদের সাত সামুরাই। সপ্তাহে সাত দিন। আরও খুঁজলে হয়তো পাওয়া যাবে অজস্র সাতের কারবার, যার কারণে মানুষ সাতকে গুরুত্ব দিয়ে আসছে বহু বহু যুগ ধরে। একসময় সাত গ্রহেরও ব্যাপার ছিল। এবার সেই সৌভাগ্যের ধারা প্রয়োগ করা হচ্ছে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জন্মদিনে।

মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) ৬৯ বছরে পা দিয়েছেন ‘মোদি জি’। এ নিয়ে ভক্ত সমর্থকদের উৎসাহের কমতি হবার কথা নয়। তবে এর মাঝে একটা উদ্যোগকে তো বেশ ব্যতিক্রমই বলতে হয়। মোদির জন্মদিনে কাটা হচ্ছে ৭ হাজার কেজি ওজনের কেক। আর তার উচ্চতাও হবে ৭’শ ফুট। তবে আরও চমকপ্রদ তথ্য হলো কেকটি কাটবেন শহরের ৭০০ সৎ ব্যক্তি।

ভারতের জনপ্রিয় সুরত বেকারি প্রতিবছরের মতো এবারও এমনই দুর্দান্ত আয়োজন করছে মোদির জন্মদিনকে ঘিরে। ১৭ সেপ্টেম্বর দিনটিকে আরও স্মরণীয় করে রাখতে অতুল বেকারি একটু ভিন্ন উদ্যোগ নিয়েছে। তারা পুষ্টিহীনতায় ভোগা ৩৭০টি স্কুলের ১২ হাজার আদিবাসী শিশুকে খাবারের প্যাকেট বিতরণ করারও ঘোষণা দিয়েছে।

এছাড়াও মোদিকে বেকারির পক্ষ থেকে জম্মু ও কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা প্রদানকারী ৩৭০ ধারা বাতিল করার সিদ্ধান্তের জন্য ধন্যবাদ জানানো হয়েছে। অতুল বেকারির মালিক ভিন্ন আঙ্গিকে উদযাপন বিষয়ে বলেন, আমরা অপুষ্টির বিরুদ্ধে লড়াই করার প্রতিশ্রুতি প্রদর্শন করে শিশুদের খাবারে পর্যাপ্ত ভিটামিন রাখার চেষ্টা করেছি।

বেকারির পক্ষ থেকে আরও জানানো হয়, আজকের দিনকে সামনে রেখে ৭০০ ফুটের কেকটি সরসানা কনভেনশন সেন্টারে তৈরি করা হয়েছে। এটি বিশ্বের বৃহত্তম কেকের জন্য বিশ্ব রেকর্ড গড়তে যাচ্ছে এবং দুর্নীতিমুক্ত ভারতের জন্যও একটি মাইলফলক।

উল্লেখ্য, জন্মদিন গুজরাটেই কাটাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী ৷ জন্মদিনে সর্দার সরোবরে গিয়ে ঘুরে দেখেন স্ট্যাচু অফ ইউনিটি ৷ জন্মদিনের শুরুটা অন্যবারের মত মায়ের আশীর্বাদ নিয়ে করবেন৷১৯৫০ সালে ১৭ সেপ্টেম্বর গুজরাটে জন্মেছিলেন নরেন্দ্র মোদি৷ মাত্র ১৭ বছর বয়সে ১৯৭৪ সালে নবনির্মাণ আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছিলেন ৷

১৯৯০ সালে আদবানির সোমনাথ থেকে অযোধ্যা পর্যন্ত রথযাত্রার আয়োজনে বিশেষ ভূমিকা নিয়েছিলেন৷২০০২ সালে গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী রূপে নির্বাচিত হয়েছিলেন৷ এরপরে তাঁরই নেতৃত্বে গুজরাটে ২০০৭, ২০১২ সালে ক্ষমতায় ফিরেছে বিজেপি ৷ তবে এখনও গুজরাটে ক্ষমতায় রয়েছে বিজেপি৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here