চাকরি করতে চাপ স্বামীর, গৃহবধুর আত্মহত্যা !!

চাকরি ছেড়ে স্বামীর সংসার করতে চেয়েছিল তরুণী। কিন্তু স্বামীর অত্যাচারে শেষ পর্যন্ত আত্মহত্যা করেছিল সে। এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই আবারো একই ঘটনার পূনরাভৃত্তি হল। চাকরি না করলে সংসারে প্রয়োজন নেই। এমনকি চাকরি না করলে সন্তানও হবে না। এমনটাই ছিল স্বামীর কথা। সেই অপমানে এবার আত্মহত্যা করল আরেক তরুণী। ঘটনা ভারতে।

জানা যায়, গতমার্চেই বিয়ে হয়েছিল ঐ তরুণীর। বিয়ের পর থেকেই তাকে নির্যাতন করা হত স্বামীর পরিবার থেকে। বলা হত চাকরি করার জন্য। চাকরি না করলে সংসারে তাকে প্রয়োজন নেই। এমনকি তার সাথে দৈহিক সম্পর্কও করবেনা স্বামী। সন্তানও হবেনা। এমন অত্যাচার থেকে বাঁচতে শেষে আত্মহত্যা করেন অনন্যা সাই নামে তরুণী।

গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করার সময় সেখান থেকে একটি চিরকুট উদ্ধার করেছে পুলিশ। চিঠিতে মাকে তিনি লিখেছেন, “জানো তো, আমায় স্বামী বলেছে চাকরি না পেলে আমার বাচ্চা হবে না। এই অত্যাচার আর সহ্য করতে পারছি না। আমাদের মধ্যে শারীরিক সম্পর্ক প্রায় নেই। এটাই ভাল হল, তোমায় রোজ রোজ কাঁদতে হল না। ” বাবার উদ্দেশে লেখা, “ভেবো মেয়ের অনেক দূরে বিয়ে দিয়েছ। তোমরা কষ্ট পেয় না।

নিহতের পরিবার থেকে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। আটক করা হয়েছে অভিযুক্ত স্বামীকেও।

তবে স্থানীয়রা বলছে, আত্মহত্যা করার মত মেয়ে ছিলনা অনন্যা। হয়তো স্বামীর অত্যাচারের কাছে নতিস্বীকার করেই হার মানতে হয়েছে তাকে। পুলিশ বলছে জিজ্ঞাসাবাদের পরই জানা যাবে আসল তথ্য।

Leave a Reply