দেশের খবর

ওয়াজ শুনে এহসান গ্রুপে গ্রাহকদের ১৬ হাজার কোটি টাকা বিনিয়োগ, সর্বশান্ত সাধারণ মানুষ!

এহসান গ্রুপের (এহসান এস) চেয়ারম্যান মুফতি মাওলানা রাগীব আহসান বিনিয়োগের মাধ্যমে সুদমুক্ত উচ্চ মুনাফার লোভে মানুষকে আকৃষ্ট করার জন্য কিছু আলেমের সাথে ওয়াজের ব্যবস্থা করতেন। এমনকি প্রচারণা চালানোর জন্য তিনি বিদেশ থেকে আলেমদের নিয়ে এসেছেন। আর বক্তাদের কথায় বিশ্বাস করে বিনিয়োগের পাশাপাশি অনেকে শ্রমিক হিসেবে জনগণের কাছ থেকে জামানত আদায় করেছেন। এভাবে পিরোজপুরে রাগীবের ঘনিষ্ঠ জামায়াত-শিবিরের কিছু কর্মীর সঙ্গে এহসান গ্রুপ বড় হয়ে ওঠে। এহসান গ্রুপের প্রতারণা উন্মোচিত হওয়ার পর এখন সাধারণ কর্মীরা আগুনের মুখে পড়েছেন। আর সেই প্রতারকদের জামায়াত সমর্থকরা তারা গা ঢাকা দিয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, রাগিব পণ্ডিতদের সঙ্গে প্রতারণাও করেছেন। পিরোজপুর, যশোর, নড়াইল এবং কুষ্টিয়াসহ দক্ষিণ-পশ্চিমে সক্রিয় এহসান গ্রুপে বিনিয়োগ করে, ২০০ মাঠকর্মী এবং এক লাখেরও বেশি গ্রাহক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শ্রমিকরা কামান থেকে গ্রাহকদের বাঁচাতে র‌্যাব-পুলিশের সাহায্য নিচ্ছে।

এদিকে, বিপুল পরিমাণ সম্পদে বিনিয়োগের কথা বলা সত্ত্বেও বাস্তবে সংশ্লিষ্টরা এহসান গ্রুপের এ ধরনের সম্পদ খুঁজে পাচ্ছে না। যশোরে ১৫ হাজার গ্রাহকের ৩২২ কোটি টাকা বিনিয়োগ করলেও সদর উপজেলার বাহাদুরপুর এলাকায় আট বিঘা এবং যশোর-নড়াইল সড়কের দইতলার হামকুড়া ব্রিজ এলাকায় ১৭ বিঘা ছাড়া সম্পদ ছাড়া আর কোন উৎস নেই। এসব জমি ইতিমধ্যেই বিক্রি হয়ে গেছে। ভুক্তভোগীদের মতে, রাগিব ও তার সহযোগীরা দৃশ্যমান কিছু সম্পদ বিক্রি করে অর্থ পাচার করে।

এহসান গ্রুপের নামে ওয়াজের বেশ কিছু ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ওয়াজকারীরা এহসান গ্রুপে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন। গ্রাহক ও শ্রমিকরা বলছেন, শরিয়া-সম্মত বিনিয়োগের আহ্বানে অনেকেই বিভ্রান্ত।

গ্রাহকদের কোটি কোটি টাকা ঠকানো হয়েছে, কিন্তু প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কোন লভ্যাংশ দেওয়া হয়নি। বিনিয়োগকারীরা সমস্যায় পড়ে যখন তারা বিলম্ব শুরু করে বলে যে তারা আজ এবং আগামীকাল দেবে। একপর্যায়ে এহসান এস-এর কর্মকর্তারা ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময়ে সমস্ত কার্যক্রম বন্ধ করে দেন।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, রাগিব তার প্রতিষ্ঠানের নামে সাধারণ মানুষের আস্থা অর্জনের জন্য ওয়াজের আয়োজন করতেন। তিনি বিদেশ থেকে ধর্মীয় বক্তাদের নিয়ে আসতেন এবং সংগঠনের পক্ষ থেকে কথা বলতেন। তিনি এভাবে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে টাকা নিয়েছেন এবং রিয়েল এস্টেট ব্যবসা এবং জমি ক্রয়ে বিনিয়োগ করেছেন। রাগিব আরও স্বীকার করেছেন যে এই ধরনের সাত বা আটটি প্রকল্প রয়েছে। যাইহোক, হাজার হাজার গ্রাহকের টাকা দিয়ে, তিনি এটি বেনামে বিভিন্ন সংস্থায় স্থানান্তর করেছেন।

সূত্র জানায়, রাগিবের ভাই মাহমুদুল পিরোজপুর বাজার মসজিদে ইমামের দায়িত্ব পালন করছিলেন। রাগিবের বাবা মাওলানা আব্দুর রব, শ্বশুর শাহ আলম এবং তাদের পরিবার জামায়াতে ইসলামীর সমর্থক। একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে দোষী সাব্যস্ত হওয়া মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর সঙ্গে পরিবারের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। জামায়াত ও ধর্মীয় নেতা হিসেবে এলাকায় তার অনুসারীদের একটি দল গঠন করা হয়েছে। তাদের অনেকেই এহসান গ্রুপের কর্মচারী। জামায়াতের কিছু কর্মীও এই সংগঠনে সক্রিয়। তারা রাগিবের ঘনিষ্ঠ সহযোগী।

Jannat Tia

Hey! I'm Jannat Tia. Bangladeshi Content creator and Content writer. I would like to write about trending topic and news of National and International

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button