ই’রানের সঙ্গে ছয় দেশের স্বাক্ষরিত পরমাণু সমঝোতার ব্যাপারে তিন ইউরোপীয় দেশের আচরণের তীব্র সমালোচনা করেছেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ।

সোমবার রাতে এক টুইট বার্তায় জাভেদ জারিফ লেখেন, দীর্ঘ ২০ মাস ধরে প’রমাণু সমঝোতায় স্বাক্ষরকারী তিন ইউরোপীয় দেশ যুক্তরাষ্ট্রের আধিপত্যকামী নীতির সামনে নতজানু অবস্থান গ্রহণ করে আছে। এই সমঝোতার বর্তমান পরিস্থিতির জন্য মূলত তারাই দায়ী।

তিনি বলেন, ফ্রান্স, ব্রিটেন ও জার্মানি চাইলে পরমাণু সমঝোতাকে ধ্বং’সের হাত থেকে রক্ষা করতে পারে। তবে সেটি করতে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে নত না হয়ে সমঝোতায় নিজেদের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে এগিয়ে আসতে হবে এই তিন দেশকে।

এর আগে ২০১৮ সালের ৮ মে ই’রানের পরমাণু সমঝোতা থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে বের করে আনে মা’র্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। এরপর ই’রানের ওপর কঠোর নিষেধাজ্ঞাও জারি করেন তিনি। ট্রাম্পের এ পদক্ষেপের বি’রুদ্ধে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে।

পরবর্তীতে যুক্তরাষ্ট্রকে ছাড়াই প’রমাণু সমঝোতা রক্ষার প্রতিশ্রুতি দেয় স্বাক্ষরকারী তিন ইউরোপীয় দেশ ফ্রান্স, ব্রিটেন ও জার্মানি। তবে প’রমাণু সমঝোতা থেকে ই’রানের যে আর্থিক সুবিধা পাওয়ার কথা ছিল সেটি দিতে চরমভাবে ব্যর্থ হয় এই তিন দেশ।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯ সালের ৮ মে পরমাণু সমঝোতার ২৬ ও ৩৬ নম্বর ধারা অনুযায়ী নিজেদের দেয়া কিছু প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন স্থগিত রাখে ই’রান। এরপর গত ৫ জানুয়ারি ই’রান পঞ্চম ও শেষবারের মতো ঘোষণা করে যে, তারা প’রমাণু সমঝোতার বাধ্যবাধকাগুলো আর মানবে না।

তবে ইউরোপীয়রা তাদের প্রতিশ্রুতি রক্ষা করলে ই’রান এ সমঝোতার ভিত্তিতে নিজের প্রতিশ্রুতিগুলো আবারও বাস্তবায়ন করা শুরু করবে বলেও জানিয়েছে। সূত্র- পার্সটুডে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here