Islamic

যেসব আমলগুলি মানুষের জীবনকে পাল্টে দেয়!

আলো আল্লাহর একটি নেয়ামত যার মাধ্যমে নবী এবং আল্লাহর একনিষ্ঠ বান্দারা মানুষকে আল্লাহর আদেশে ভ্রষ্টতার পথ থেকে আলোর পথে পরিচালিত করে। পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘আল্লাহ ঈমানদারদের অভিভাবক। তিনি তাদের অন্ধকার থেকে আলোতে নিয়ে আসেন। আর যারা অবিশ্বাস করে, আল্লাহর অশুভ শক্তি তাদের অভিভাবক। তারা তাদের আলো থেকে এবং অন্ধকারে নিয়ে যায়। তারাই জাহান্নামের অধিবাসী। তারা সেখানে চিরকাল থাকবে। ‘(সুরা আল বাকারা, ২৫৬)

যদি কেউ সৎ কাজের মাধ্যমে জ্ঞান লাভ করতে পারে, তাহলে কেয়ামতের দিন এই জ্ঞানের আলোকে সাফল্য অর্জন করতে পারে। এই আলোর মাধ্যমে মানুষ হাশর, পুলসিরাত এবং জান্নাতে আলোকিত হবে। তারা চারদিক থেকে আলো দ্বারা ঘিরে থাকবে। যে কাজগুলো মুমিনের জীবনকে আলোকিত করে তা নিচে আলোচনা করা হলো:

অজু: অজু পূজার একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ। দোয়া কবুল হওয়ার জন্য এটি একটি পূর্বশর্ত। অজু হল সেই সময়ের মধ্যে একটি যার মাধ্যমে আলো অর্জন করা যায়। নুয়াম ইবনে আবদুল্লাহ বর্ণনা করেন: তিনি আবু হুরায়রাকে ওযু করতে দেখেছেন। অজু করার জন্য, তিনি তার মুখ এবং হাত এমনভাবে ধুয়েছিলেন যে তিনি তার কাঁধ পর্যন্ত ধুয়েছিলেন। তারপর সে তার পা এমনভাবে ধুয়ে দেয় যে সে পায়ের ড্রেনের কিছু অংশ ধুয়ে দেয়। এভাবে ওযু করার পর তিনি বলেন, আমি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম -কে বলতে শুনেছি যে, আমার উম্মত কিয়ামতের দিন উজ্জ্বল মুখমণ্ডল এবং হাত -পা দিয়ে উজ্জ্বল হবে। সুতরাং আপনারা যারা সক্ষম তারা একটি উজ্জ্বল আলো দিয়ে উঠার চেষ্টা করুন। (মুসলিম, হাদিস: ২৪৭)

নামাজ: নামাজ শুধু একটি ইবাদতের বাধ্যতামূলক কাজ নয়। বরং এটি আল্লাহর নৈকট্য লাভের একটি মাধ্যম। নামাজ একটি ইবাদতের কাজ যার মাধ্যমে আলো অর্জন করা যায়। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “পবিত্রতা ঈমানের অর্ধেক। ‘আল-হামদু লিল্লাহ’ মানুষের কর্মের পাল্লা পূরণ করে এবং ‘সুবহানাল্লাহ ওয়াল হামদু লিল্লাহ’ থাবাবের দাঁড়িপাল্লা পূরণ করে। অথবা, যেমন তিনি বলেছেন, এটি আসমান ও পৃথিবীর সবকিছু পূরণ করে। নামাজ হালকা। চ্যারিটি (দাতার পক্ষ থেকে) দলিল। ধৈর্য হালকা। কুরআন আপনার পক্ষে বা বিপক্ষে একটি দলিল। প্রত্যেক মানুষ সকালে ঘুম থেকে উঠে তাদের কাজে আত্মা কেনা -বেচা করে। হয়তো সে তাকে মুক্তি দেয় অথবা তার জীবন ধ্বংস করে। “(মুসলিম, হাদিস: ২২৩)

জুমুয়ায় উপস্থিত হওয়া: জুমুআকে সাপ্তাহিক .দ হিসেবে গণ্য করা হয়। জুমুয়ায় উপস্থিত হওয়ার যেমন বিশেষ ফজিলত আছে, তেমনি উপস্থিত হয়ে প্রার্থনা করাও আল্লাহর নূর অর্জনের অন্যতম মাধ্যম। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘আল্লাহ তাআলা কিয়ামতের দিন দুনিয়ার দিনগুলোকে তার অবস্থাতেই তুলবেন। কিন্তু জুমার দিনটিকে উজ্জ্বল ও উজ্জ্বল করুন। শুক্রবার কালেক্টররা যেমন আলোতে ঘেরা থাকবে তেমনি নতুন বরকে ঘিরে রাখা হবে। এটি তাকে প্রিয়জনের কাছে নিয়ে যায়। তারা আলো দ্বারা ঘিরে থাকবে এবং সেই আলোতে হাঁটবে। তাদের রঙ বরফের মতো উজ্জ্বল এবং কর্পুরের মিশ্রণের মতো সুগন্ধি হবে। জ্বিন এবং মানুষ তাদের দিকে তাকিয়ে থাকবে। তারা আনন্দে ফিরে না তাকিয়ে জান্নাতে প্রবেশ করবে। মুয়াজ্জিন ছাড়া কেউ তাদের সাথে মিশতে পারে না যারা আন্তরিকভাবে পুরস্কারের আশা করছে। ‘
অন্ধকারে মসজিদে হাঁটা: অযু করে মসজিদে হাঁটার অনেক ফজিলত রয়েছে। আর যদি কেউ এক অন্ধকার রাতে মসজিদে এশা ও ফজরের নামাজ জামাতে আদায় করতে যায়, তাহলে তা হবে তার জন্য আলো। সেই আলোর আলোয় সে পুলসিরাত অতিক্রম করবে। নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘যারা রাতের অন্ধকারে মসজিদে যায় তাদের কেয়ামতের দিন পূর্ণ আলোর সুসংবাদ দাও।’ (তিরমিযী, হাদিস: ২২৩)

Jannat Tia

Hey! I'm Jannat Tia. Bangladeshi Content creator and Content writer. I would like to write about trending topic and news of National and International

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button