দেশের খবর

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত শিক্ষামন্ত্রীর

সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে বলে পুনরাবৃত্তি করে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেন, সংক্রমণের হার কিছুটা কমার সাথে সাথেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো আবার খুলে দেওয়া হবে।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি)মঙ্গলবার আওয়ামী লীগের সংস্কৃতি বিষয়ক উপ-কমিটি আয়োজিত জাতীয় শোক দিবসের অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের এই বৈশ্বিক সংকটের শুরু থেকেই আমাদের শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন ব্যাহত না করার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন, বরং স্বাস্থ্যসেবাকে অগ্রাধিকার দিতে।” আমরা বিভিন্ন পদ্ধতি অবলম্বন করেছি যাতে তারা তাদের পড়াশোনায় পিছিয়ে না পড়ে।”

সংক্রমণের হার ধীরে ধীরে কমে আসছে এমন আশাবাদ ব্যক্ত করে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, “যেভাবে সংক্রমণ কমে আসছে। এটা আমাদের জন্য সুখবর। যদি এই পতন হয়, আমি খুব শীঘ্রই সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলতে সক্ষম হব। ”

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

নাট্যকার আতাউর রহমানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু, সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ এবং আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল। অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন নুজহাত চৌধুরী।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পরিকল্পনা ও প্রস্তুতি সম্পর্কে দীপু মনি বলেন, “কিন্তু আমরা এটি ধাপে ধাপে খুলব। কারণ আমাদের ক্লাসরুমে শিক্ষার্থীর সংখ্যা বিশ্বের অন্য যে কোন দেশের চেয়ে বেশি। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা জরুরি। এই রোগে। ”

“প্রত্যেকেরই শুরু থেকে সপ্তাহে ছয় দিন ক্লাস নেওয়ার সুযোগ নাও থাকতে পারে। এতে কিছুটা সময় লাগবে। আমরা একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত। শুধু সংক্রমণের হার কিছুটা কমে যাওয়ার জন্য অপেক্ষা করুন।”

দেশে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার কারণে গত বছরের মার্চ থেকে সমস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। বেশ কিছু উদ্যোগ সত্ত্বেও, পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি এবং প্রায় দেড় বছর ধরে শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষের বাইরে ছিল।

শিক্ষার্থী ও অভিভাবক ছাড়াও সরকারের ওপর বিভিন্ন মহল থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার চাপ বাড়ছে। এদিকে, ১৬ আগস্টের বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সংক্রমণ পরিস্থিতি এবং টিকা দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত নিতে বলেন।

মঙ্গলবার আরেকটি প্রোগ্রামে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেনও স্কুল খোলার কথা বলেছেন।

তিনি বলেন, স্কুল পুনরায় খোলার সব প্রস্তুতি সত্ত্বেও সরকার মহামারী পরিস্থিতি “আরেকটু স্বাভাবিক” হওয়ার অপেক্ষায় ছিল।

তবে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে যে কোনো সময় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পুনরায় চালু করা যেতে পারে।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে স্কুল খোলার বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে প্রতিমন্ত্রী বলেন, “উচ্চ পর্যায়ের নির্দেশনা না পাওয়া পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী পরিষদ এবং স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নেবে। । ” তাড়াহুড়ো করে স্কুল খোলা যাবে না।

আরেকটু স্বাভাবিক হলে স্কুল খোলার কথা। কবে নাগাদ খোলা হবে ঠিক বলতে পারব না। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিলে আমাদের আজকে বললে আমরা কালকে খুলে দিতে প্রস্তুত।

 

Jannat Tia

Hey! I'm Jannat Tia. Bangladeshi Content creator and Content writer. I would like to write about trending topic and news of National and International

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button